ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগ থেকে ডিগ্রি অর্জন করে অর্গানিক পণ্যের উদ্যোক্তা তামান্না

0

তামান্না শারমিন নাদিয়া একজন অর্গানিক পণ্যের  উদ‍্যোক্তা। মেয়েকে ভেজাল মুক্ত খাবারের নিশ্চয়তা দিতেই তার উদ্যোক্তা হয়ে ওঠা। তামান্নার অনলাইন উদ্যোগের নাম ‘কায়া’।

উদ্যোক্তা ছাড়াও তামান্না একজন শিক্ষক। কল্যাণপুর গার্লস স্কুল ও কলেজে শিক্ষকতা করেছেন তিনি। করোনা  মহামারীর কারনে সেটিও বন্ধ হয়ে যায়। ঐ সময়ই মেয়ে আয়াত পৃথিবীতে আসে। সে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়। হাসপাতালে থাকা অবস্থায় চিন্তা করি, মেয়েকে ভেজাল মুক্ত খাবার দিতে হবে। তারপর থেকে ভেজাল মুক্ত খাবারের সন্ধান করতে থাকেন, এভাবে বেশ কিছুদিন যাবার পর মনে হলো, আমি ভেজাল মুক্ত খাবারের যেগুলো সন্ধান করতে পেরেছি, সেগুলো আমি অন্যদের কাছেও সরবরাহ করবো, সেই ভাবনা থেকেই ২০২১ সালের ৬ই ডিসেম্বর শুরু হয় তামান্নার উদ্যোক্তা জীবনের শুরু।

মাত্র ১৫০০ টাকা পুঁজি দিয়ে উদ‍্যোগ শুরু করেন এবং এখন নিজের বাসায় ছোট একটা গোডাউনে প্রোডাক্ট সংরক্ষণ করছেন। প্রতি মাসে প্রায় পঞ্চাশ হাজারের মত পণ্য সেল হয়।

উদ‍্যোক্তা তামান্নার ‘কায়া’ প্রতিষ্ঠানে রয়েছে – কাঠের ঘানিতে ভাঙ্গানো দেশি লাল সরিষার প্রথম চাপের কোল্ড প্রেস সরিষার তেল,পাবনার বিশুদ্ধ গাওয়া ঘি, দিনাজপুরের সুগন্ধি বাদশাভোগ পোলাও চাল,সুন্দরবনের প্রাকৃতিক চাকের মধু, কালোজিরা ফুলের মধু, লিচু ফুলের মধু, খলিশা ফুলের মধু, সরিষা ফুলের মধু,মিক্স ড্রাই ফ্রুটস, আনসল্টেড বাটার, কালোজিরা তেল, বাদাম তেল
শ্রীমঙ্গলের রেগুলার টি,গ্রিন টি,কালোজিরা, কাঠবাদাম, কাজুবাদাম,চিয়া সিড ইত‍্যাদি অর্গানিক পণ্য। এছাড়া তিনি ঘি, বাটার নিজেই বাড়িতে তৈরি করেন বলে জানান।

শুরুতে তামান্না ৫ কেজি কাঠের ঘানিতে ভাঙা দেশি লাল সরিষার তেল বাসায় নিয়ে আসেন, এরপরে পরিচিত মানুষের কাছে ও অনলাইনের বিভিন্ন উদ্যোক্তা গ্রুপে সেল পোস্ট দিতে শুরু করেন। এতে ভালো রেসপন্স পেয়ে থাকেন তিনি। ২ মাস পর আরও কিছু পণ্য বিক্রি করতে শুরু করেন উদ‍্যোক্তা তামান্না।  

তামান্না জানান – “কিছু দিনের মধ্যে সবার মাঝে বিশ্বাসের একটা জায়গা তৈরি করে নেন তিনি। আলহামদুলিল্লাহ বর্তমানে অনলাইনে এবং অফলাইনে পেজের মাধ্যমে বিজনেস করে এমন অনেক উদ্যোক্তাদের কাছে আমি পাইকারী দামে আমার পণ্যগুলো বিক্রি করছি। ২০২১ সালের ডিসেম্বর মাসের পর থেকে আমাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।

সব ধরনের ক্রেতারাই তামান্নার পণ্য ক্রয় করে থাকেন তবে তিনি জানান – তার রিপিট কাষ্টমারই বেশী। যারা তার কাছ থেকে একবার পণ্য নিয়েছে তারাই পরে তার নিয়মিত কাষ্টমার হয়েছে। এছাড়া কিছু ক্রেতা নিজস্ব উদ্যোগে তার প্রোডাক্ট বাইরের দেশে নিয়ে গেছেন তার মধ‍্যে কানাডা, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া ও সুইজারল্যান্ডে তার পণ্য গিয়েছে।

তরুণ উদ‍্যোক্তাদের জন‍্য তামান্না বলেন – পরিকল্পনা করে শতভাগ সততার সাথে কাজ করে যেতে হবে। যে পণ্য নিয়ে কাজ করবেন সেটা সম্পর্কে ভালো করে জানতে হবে। লক্ষ্যে পৌঁছানোর জন্য সততার সাথে পরিশ্রম করলে ঠিকই লক্ষ‍্যে পৌছাঁনো যায়।

ঢাকায় জন্ম এবং বেড়ে উঠা উদ‍্যোক্তা তামান্না ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগ থেকে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর  ডিগ্রি অর্জন করেছেন। ভবিষ্যতে এই উদ‍্যোক্তা নিজের কর্মসংস্থানের পাশাপাশি অন্যদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে চান এবং সেই সাথে বাংলাদেশের সকল জেলার মানুষের কাছে নিজের ব্র্যান্ডকে তুলে ধরতে চান। 

আফসানা অভি
উদ‍্যোক্তা বার্তা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here