বিদেশেও ‘নূর মসলা’ রপ্তানি করতে চায় উদ্যোক্তা কামাল

0
উদ্যোক্তা- কামাল হোসেন

যেকোনো সুস্বাদু রান্না করার জন্যে মসলার অবদান অনস্বীকার্য। গুঁড়া মসলা তৈরির পর প্যাকেটজাত করে বিক্রয় করে জনপ্রিয় হয়েছেন রাজশাহীর কামাল হোসেন।

মসজিদে ইমামতির পাশাপাশি মসলার ব্যবসা করে পুরো রাজশাহী জুড়ে বর্তমানে জনপ্রিয় কামালের ‘নূর মসলা’। উদ্যোক্তা জানালেন বর্তমানে তার গুঁড়া মসলা রাজধানী ঢাকাতেও পাওয়া যাচ্ছে।

জন্ম সিরাজগঞ্জে হলেও কামালের পড়াশুনা আর বেড়ে ওঠা রাজশাহীতে। হাফেজিয়া মাদ্রাসায় পড়াশুনার হাতেখড়ি হলের মাস্টার্স ডিগ্রী অর্জন করেন রাজশাহী কলেজ থেকে। পড়াশুনা শেষে ইমাম হিসেবে যোগ দেন এলাকার একটি মসজিদে।

খোলা বাজারের বেশিরভাগ গুঁড়া মশলায় মেশানো হয় ভেজাল। আর সে থেকেই ভালো কিছু করার প্রত্যয়ে স্ত্রীর অনুপ্রেরণায় মাত্র ১০ হাজার টাকা পুঁজি নিয়ে কামাল শুরু করেন গুঁড়া মশলার ব্যবসা।

noor mas
মোছা: শারমিন আক্তার লিজা

কামাল উদ্যোক্তা বার্তাকে জানালেন, ‘‘স্ত্রীকে নিয়ে শুরু করি মশলা উৎপাদন। তবে শুরু থেকেই আমাদের ইচ্ছা ছিল বাজে বা ভেজাল কিছু আমাদের ব্যবসায় যুক্ত করবো না। শুরুতে আশপাশের পরিচতজনদের কাছে বিক্রি করি। পরে মানুষের মুখে মুখে তা ছড়িয়ে যায়। পুরো রাজশাহীতে এখন পাওয়া যাচ্ছে আমার ‘নূর মশলা’। এছাড়া ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলাতেও যাচ্ছে আমার মশলা।’’

প্রতি মাসে বিক্রি কেমন জানতে চাইলে কামাল হোসেন বলেন, ‘‘মাসে ১ মণ হলুদ, ১ মণ মরিচ, ১ মন ধনিয়া ও ১ মন জিরার গুঁড়া মশলা আমি এখন তৈরি করছি। আর এ থেকে মাসে বিক্রি হয় ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকার পণ্য। ইমামতির পাশাপাশি বাড়তি এ আয় এ এখন আল্লাহর রহমতে বেশ ভালোভাবেই চলছে আমার সংসার।’’

noorrr

ভবিষ্যত পরিকল্পনা জানতে চাইলে উদ্যোক্তা কামাল হোসেন বলেন, ‘‘মশলা উৎপাদনের মেশিন কিনে ব্যবসা শুধু দেশে নয়, বিদেশেও ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা আছে আমার। পাশাপাশি সহসাই বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনে যেতে চাই।’’

নতুন উদ্যোক্তাদের কাছে কামালের বক্তব্য একটাই, ‘ব্যবসার মূল ভিত হতে হবে সততা। সেই সাথে কাজের প্রতি ভালোবাসা। এই দুইটা জিনিস থাকলে ব্যবসায় সফলতা না এসে পারে না।’

কামালের ভাষ্য, ‘‘উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য মনোবলটাই সবচেয়ে জারুরি। কাজ করতে গেলে বাধা আসবেই, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু হতাশ হলে চলবে না।’’

মাসুমা শারমিন সুমি
উদ্যোক্তা বার্তা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here