নিপা সেনগুপ্ত ছাতুই বিক্রি করেছেন সাত লাখ টাকার

0
উদ্যোক্তা নিপা সেনগুপ্ত

যবের ছাতু, পঞ্চ-ব্যঞ্জন ছাতু, ছোলার ছাতু। উদ্যোগ গ্রহণের পর শুধুমাত্র ৭ লাখ টাকার এসব ছাতুই বিক্রি করেছেন ঐতিহ্যবাহী কৃষির অমৃত স্বাদ-এর স্বত্বাধিকারী নিপা সেনগুপ্ত। ঢেঁকি ছাটা এবং মেশিনে ভাঙানো ছাতুর চাহিদা দেখে গত বছর জমি লিজ নিয়ে যবের চাষও করেছেন এ উদ্যোক্তা।

ছাতুর বাইরে ঐতিহ্যবাহী কৃষির অমৃতস্বাদে ঢ্যাপের মোয়া, বিভিন্ন ধরনের নাড়ু, ঘি, আম, খেজুরের ও আখের গুড়, ডাল, সরিষার তেল, মৌসুমি ফলসহ ৩৫টির বেশি পণ্য রয়েছে।

কোন ধরনের ক্রেতারা আপনার ছাতু বেশি পছন্দ করেন? উত্তরে নিপা জানান, “দেড়-দু’বছরের বাচ্চাদের জন্য মায়েরা আমার পঞ্চ-ব্যঞ্জন ছাতু নিয়ে থাকে। এটি রাজশাহীর মানুষের কাছে মিক্সড ছাতু নামে পরিচিত। ডায়াবেটিস রোগীরাও এই ছাতু বেশি বেশি নেন। এছাড়া এখনকার তরুণ প্রজন্ম স্বাস্থ্য সচেতন, তারাও নেন আমার ছাতু।”

OISHE 1 2

তার উদ্যোক্তা হয়ে উঠার গল্পটা বেশ কৌতুহল উদ্দীপক।

করোনা পরিস্থিতিতে বাসায় অলস সময় পার করছিলেন নিপা সেনগুপ্ত। হাতে স্মার্টফোন থাকার সুবাদে পরিচিত হন উইমেন অ্যান্ড ই-কমার্স (উই) গ্রুপের সাথে। বেশ কয়েকদিন এই গ্রুপের পোস্টগুলো লক্ষ্য করেন। বুঝতে পারেন ঘরে বসেই অসংখ্য লোক স্বাবলম্বী হচ্ছে। তখন তার মনে হয়, তিনিও কিছু একটা করবেন।

খুব ভালো রান্না করেন নিপা। তাই প্রথমে ভেবেছিলেন হোমমেইড ফুড নিয়ে কাজ করবেন। স্বামী বললেন: “করোনা পরিস্থিতিতে অফিস বন্ধ, এখন বেশিরভাগ নারী বাসায় আছেন, তারা নিজেরাই মজার মজার রান্না করছেন, তাহলে আমাদের থেকে কেন খাবার নেবেন?” স্বামীর কথায় যুক্তি আছে দেখে সিদ্ধান্ত বদলালেন। পরে ভাবলেন পোশাক নিয়ে কাজ করবেন। আশেপাশে লক্ষ্য করে দেখেন, বেশিরভাগ উদ্যোক্তাই পোশাক নিয়ে কাজ করছেন। তাই এই সিদ্ধান্তও বাতিল হলো। এরপরে ভাবলেন এমন কিছু নিয়ে কাজ করবেন, যা হবে ব্যতিক্রমী এবং দেশের কৃষকরাও এর সাথে জড়িয়ে থাকবেন। স্বামীও এ সিদ্ধান্তে সম্মতি দিলেন। এভাবেই সামাজিক পাতায় ‘ঐতিহ্যবাহী কৃষির অমৃত স্বাদ’ পেজের সূচনা।

‘ফলশাহ’ নামে দেশের একটি বিলুপ্তপ্রায় ফল নিয়ে প্রথম পোস্ট করেন উদ্যোক্তা নিপা। প্রথম পোস্টেই বাজিমাত। এতো সাড়া আসতে থাকে যে, সে পরিমাণ ফলই তখন উদ্যোক্তার কাছে মজুত ছিলো না। তাই স্বামী পরামর্শ দেন এ ফলের চারাগাছ নিয়ে পোস্ট করতে। এ পোস্টেও ব্যাপক সাড়া পান নিপা সেনগুপ্ত। এরপর পণ্য তালিকায় যুক্ত করেন যবের ছাতু। এখানেও ব্যাপক চাহিদা লক্ষ্য করেন। বরেন্দ্র অঞ্চলে কিছু কিছু জায়গায় স্বল্প পরিমাণে যব চাষ হওয়ায় ১০/১২ বিঘা জমি লিজ নিয়ে গতবছর যব চাষ শুরু করেন। এ বছরও তিনি যবের চাষ করেছেন বলে উদ্যোক্তা বার্তাকে জানান নিপা।

দেশের ৬৪ জেলাতেই ঐতিহ্যবাহী কৃষির অমৃত স্বাদ-এর বিভিন্ন ধরনের পণ্য পৌঁছে গেছে। দেশের বাইরে লন্ডন, সিডনি, মেলবোর্ন, কাঠমান্ডু এবং ভারতেও তার পণ্য যাচ্ছে। বর্তমানে ৫ জন সহকর্মী রয়েছে এ উদ্যোক্তার। নিজ উদ্যোগের পাশাপাশি ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে উই গ্রুপে রাজশাহীর মডারেটর এবং ২০২২ সালের জানুয়ারি থেকে রাজশাহী জেলা প্রতিনিধির দায়িত্বে আছেন নিপা সেনগুপ্ত।

OISHE 2 2

তার জন্ম থেকে বেড়ে উঠা ঈশ্বরদীতে। বর্তমানে রাজশাহী কলেজে স্নাতকোত্তর পড়ছেন তিনি।

উদ্যোক্তা বার্তাকে তিনি বলেন: শুরু থেকেই আমাকে পরিবারের সকলে ভীষণভাবে সাপোর্ট করে গেছে। বিশেষ করে আমার বর, তিনি প্রতিনিয়ত আমাকে সাহস যোগান। আমার বিভিন্ন ধরনের পণ্য আছে যেমন ঢ্যাপের মোয়া, এই ঢ্যাপগুলো আমরা অনেক দূর থেকে সংগ্রহ করি, বাইরের এসব বিষয়ে সে আমাকে ভীষণ সহযোগিতা করে।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আরো অনেক মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে চাই। পাশাপাশি এসব কৃষি পণ্য নিয়ে আমার একটি আউটলেট থাকবে, এটি আমার স্বপ্ন।”

তামান্না ইমাম,
উদ্যোক্তা বার্তা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here