Advertisement

দেশের প্রথম অনলাইন ভার্চ্যুয়াল শিক্ষামূলক টিউটরিং প্ল্যাটফর্ম হিসেবে আত্মপ্রকাশ করলো ‘দীক্ষা’। এ প্ল্যাটফর্মের কার্যক্রমের ফলে এখন আর শিক্ষক বা শিক্ষার্থীকে আলাদা করে পড়াশোনা করতে কোথাও যেতে হবে না বরং যে যার বাসা থেকেই নিজেদের সুবিধামতো সময়ে করতে পারবেন ক্লাস।

সম্প্রতি করোনাকালীন সময়ে অনলাইনে একটি অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ‘দীক্ষা’র শুভ সূচনা করেন বিশিষ্ট উদ্যোক্তা ও দীক্ষার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রিনা খানম।

এ বিষয়ে তিনি বলেন, করোনাকালীন আমরা সবাই এখন অনলাইন ক্লাসের সঙ্গে পরিচিত। সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই অনলাইন লার্নিং প্ল্যাটফর্ম এখন অনেক জনপ্রিয়। দীক্ষা সেরকমই একটি অনলাইন প্ল্যাটফর্ম। এ প্ল্যাটফর্মের কার্যক্রমের ফলে এখন আর শিক্ষক বা শিক্ষার্থীকে আলাদা করে টিউশন নিতে কোথাও যেতে হবে না বরং যে যার বাসা থেকেই নিজেদের সুবিধামতো সময়ে ক্লাস করতে পারবেন।

দীক্ষার চিফ টেকনিক্যাল অফিসার রায়হান আল ইসলাম জানান, বিশ্বের বিভিন্ন অ্যাডুকেশনাল ইনস্টিটিউটে যেসব প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয় সেগুলো থেকে ভালো ফিচারগুলো যুক্ত করার চেষ্টা করা হয়েছে ‘দীক্ষা’য়। এছাড়া প্রতিনিয়ত চেষ্টা চলছে একে আরও উন্নত করার জন্য। আর ক্লাস ছাড়াও ট্রেনিং, ইনডিভিজুয়াল কোর্স পরিচালনায় দীক্ষা ক্লাসরুমকে কাজে লাগানো সম্ভব।

Advertisement

বর্তমানে দীক্ষার সঙ্গে যুক্ত আছেন প্রায় সাড়ে চার হাজার শিক্ষক। যারা সব সময় চেষ্টা করে যাচ্ছে শিক্ষার্থীদের অনলাইনে শিক্ষা বিষয়ক সাপোর্ট দেওয়ার জন্য।

এছাড়া এখানকার অনেক শিক্ষক অনলাইনে দেশের বাইরেও পড়াচ্ছেন, যার মাধ্যমে দেশে আসছে বৈদেশিক মুদ্রা।

প্রতিষ্ঠানটির সঙ্গে সম্পৃক্তরা বলছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশে প্রয়োজন ডিজিটাল শিক্ষাব্যবস্থা। এক্ষেত্রে দীক্ষা ভার্চুয়াল ক্লাসরুম হতে পারে একটি অন্যতম মাইলফলক।

বিশেষজ্ঞদের মতে, দীক্ষার মতো একটি দেশি সফটওয়্যার যদি শিক্ষাক্ষেত্রে সর্বত্র ব্যবহার করা যায় তাহলে দেশ যেমন উপকৃত হবে, তেমনি অর্থনৈতিকভাবেও স্বাবলম্বী হবে আমাদের দেশের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। দীক্ষার সব তথ্য পাওয়া যাবে তার (http://www.dikkha.com) ওয়েবসাইট থেকে।

ডেস্ক রিপোর্ট, উদ্যোক্তা বার্তা

Advertisement

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here